বিআইপিডি

বিআইপিডির টাকা ফেরত দিচ্ছে না ফারইস্ট ফাইন্যান্স

দেশের আর্থিক খাতের শিক্ষক-ছাত্রদের প্রশিক্ষণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট ফর প্রফেশনাল ডেভেলপমেন্টের (বিআইপিডি) ৬টি অ্যাকাউন্টে আমানত রাখা এক কোটি ৮ লাখ টাকা ফেরত দিচ্ছে না পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ‘জেড’ ক্যাটাগরির প্রতিষ্ঠান ফারইস্ট ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

শনিবার (২০ এপ্রিল) ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরামের (ইআরএফ) কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে এই অভিযোগ তুলে ধরেছে বিআইপিডি। এ সময় বিআইপিডির চেয়ারম্যান মো. এহসান খসরু, পরিচালক কাজী মো. মোরতুজা আলী, জেনারেল সেক্রেটারি এ কে এম এহসানুল হকসহ প্রতিষ্ঠানটির অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ফারইস্ট ফাইন্যান্সের অনিয়মের অভিযোগ তুলে ধরে বিআইপিডির চেয়ারম্যান লিখিত বক্তব্যে বলেন, বিআইপিডি ২০১৬ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ফারইস্ট ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডে সর্বমোট ১ কোটি ৮ লাখ ৩৫ হাজার টাকার ছয়টি ফিক্সড ডিপোজিট রিসিপ্ট একাউন্ট বা এফডিআর খুলেছিলো। সবকটি এফডিআরের মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়া সত্ত্বেও ফারইস্ট ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড বিআইপিডির কোনো অর্থ পরিশোধ করেনি। এমনকি আমানতের লভ্যাংশও প্রদান করছে না।

তিনি জানান, কোম্পানিটিকে এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত ৫৬ টি চিঠি দেয়া সত্ত্বেও তারা কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। এমন কি ২০২০ সালের পরে কোনো পত্রের জবাবও দেয়নি।

এহসান খসরু বলেন, ফারইস্ট ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের বিষয়টি নিয়ে বিআইপিডি ২০১৯ সালের ১১ জুন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর বরাবর প্রথম চিঠি দিয়েছিলো। সর্বশেষ চলতি বছরের ১৭ এপ্রিল চিঠি পাঠানো হয়। এ যাবত বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর, ডেপুটি গভর্নর এবং ফিন্যান্সিয়াল ইনটিগ্রিটি অ্যান্ড কাস্টমার সার্ভিস বিভাগ বরাবর ৩৬ টি পত্র ও ইমেইল পাঠানো হলেও আজ পর্যন্ত কোনো জবাব পাওয়া যায়নি। জবাব না দেয়ার কোনো কারণ আছে কি না আমরা তাও জানতে পারিনি।

তিনি বলেন, ২০২২ সালের ২০ ডিসেম্বর এবং ২০২৩ সালের ২ আগস্ট অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ থেকে ফারইস্ট ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড কর্তৃক বিআইপিডির অর্থ পরিশোধ না করার বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংককে পত্র দেয়া হয়। এই পত্র দেয়ার পরে ৮ মাসের বেশি সময় অতিবাহিত হলেও বাংলাদেশ ব্যাংক এ ব্যাপারে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি বা আমাদেরকে অবহিত করেনি।

তিনি আরো বলেন, চলতি বছরের ১৯ ফেব্রুয়ারি সরাসরি সাক্ষাৎকালে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডিএফআইএমের ডিরেক্টর মো. আমির উদ্দিন উল্লেখ করেন যে, কোম্পানি ম্যাটার নম্ব-২৪৩/২০২০ এর প্রেক্ষিতে আদালতের ২০২১ সালের ১৭ জানুয়ারির আদেশের পরিপ্রেক্ষিতে ফারইস্ট ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডে রক্ষিত বিআইপিডির আমানত অবরুদ্ধ করা হয়েছে।

বিআইপিডির অভিযোগ, ফারইস্ট ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি এবং পিএফআই প্রোপারটিজ লিমিটেডের মধ্যে চলমান মামলায় এমন আদেশ দেয় মহামান্য আদালত। এর সঙ্গে বিআইপিডি কোনোভাবে জড়িত নয় এবং আদালতের আদেশে বিআইপিডির হিসাব স্থগিত করার বিষয়ে কোনো

Scroll to Top